আজ ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৬শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং

একটি হত্যামামলার রায় হতে লাগলো ২৪ বছর!

সংবাদদাতা, ওসমানীনগর :: সিলেটের ওসমানীনগরে বশির আহমদ নামের এক ব্যক্তিকে হত্যার ঘটনায় মামলায় প্রায় ২৪ বছর পর দুই আসামীকে যাবজ্জীবন সাজা প্রদান করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সিলেট জেলা দায়রা জজ ৩য় আদালতের বিচারক রোকসানা বেগম এ সাজা প্রদান করেন।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- বালাগঞ্জ উপজেলার বোয়ালজুর ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামের অজিত কুমার শুক্লবৈদ্য (৫০) ও হবিগঞ্জ সদর থানার তেঘরিয়া গ্রামের আবু বক্করের ছেলে মুসলিম মিয়া (৪৮)। অজিত কারাগারে থাকলেও মুসলিম পলাতক রয়েছেন। বশির আহমদ ওসমানীনগর উপজেলার ব্রাহ্মণগ্রাম গ্রামের মস্তফা মিয়ার ছেলে।

জানা গেছে, ১৯৯৬ সালের ১৭ জুন রাতে অজিত শুক্লবৈদ্য তার ভাতিজা অসুস্থ থাকার বলে বশির আহমদকে তাদের বাড়ি বালাগঞ্জে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে। এসময় অজিতের সাথে থাকা মুসলিম মিয়া ও বশির মিয়া তিনজন নৌকা নিয়ে সোনাপুরের উদ্যেশ্যে রওয়ানা হন। কালাশাড়া হাওরে যাওয়ার পর নৌকার বৈঠা দিয়ে পরিকল্পিতভাবে বশির আহমদের মাথায় আঘাত করতে থাকে দুইজন। এসময় বশির আহমদের মৃত্যু নিশ্চিত করে কালাশাড়া হাওরে কচুরিপানা দিয়ে লাশ গুম করে চলে যায় দুই ঘাতক। এ খুনের ঘটনায় অজিত ও মুসলিমকে আটক করে পুলিশ। পরদিন তাদের দেওয়া তথ্যানুসারে বশিরের লাশ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় ১৯৯৬ সালের ১৯ জুন নিহতের মামা মাহমদ আলী বাদী হয়ে বালাগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় অজিত শুক্লবৈদ্য ও মুসলিম মিয়াক গ্রেফতার দেখায় পুলিশ। পরে উচ্চ আদালত থেকে ২০০৭ সালে জামিন পান আসামীরা। জামিন পাওয়ার পর থেকে মুসলিম মিয়া পলাতক রয়েছেন। মামলার দীর্ঘ শুনানি, সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আজ বৃহস্পতিবার আদালত রায় ঘোষণা করেছেন।
মামলার রায়ে খুশি জানিয়ে বশির আহমদের ছোট ভাই হেলাল আহমদ বলেন, ‘দীর্ঘ ২৪ বছর পর আমার ভাইয়ের হত্যা মামলার বিচার হয়েছে। আসামীদের সাজা হওয়ায় আমাদের ২৪ বছরের চাপা ক্ষোভের অবসান হলো। আমি প্রশাসনের কাছে আবেদন করছি, পলাতক মুসলিম মিয়াকে খুঁজে বের করার জন্য।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap