আজ ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৬শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং

‘আমরা যদি না জাগি মা কেমনে সকাল হবে’

  • ‘টেন’ : এসএমপি’র ট্রাফিক পুলিশের ব্যতিক্রমী কার্যক্রম

ডেস্ক রিপোর্টার :: ‘আমরা যদি না জাগি মা কেমনে সকাল হবে’। এই কবিতায় নবীনদের জেগে ওঠার কথাই ধরেছিলেন বিদ্রোহী ও জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম। নজরুলের কবিতায় অনুপ্রাণিত হয়েই যেন ট্রাফিক সচেতনতা বাড়াতে সিলেট মহানগরীতে নবীনদের নিয়ে কাজ শুরু করেছে সিলেট মহানগর পুলিশের (এসএমপি) ট্রাফিক শাখা।

মহানগরীর প্রত্যেকটি মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্কুলে শিক্ষার্থীদের নিয়ে কমিটি গঠনের কাজ করছে তারা। এ ব্যতিক্রমী কার্যক্রমের নাম দেওয়া হয়েছে ‘ট্রাফিক এডুকেশন নেটওয়ার্ক (টেন)’। এর মধ্য দিয়ে ট্রাফিক সচেতন প্রজন্ম গড়ে ওঠবে বলে প্রত্যাশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, সাধারণ মানুষের মধ্যে ট্রাফিক বিষয়ক যথার্থ জ্ঞানের অভাবে সিলেট মহানগরীতে যানজট নিত্যদিনকার বিষয়। শুধু যানজটই নয়, সড়কে বিশৃঙ্খলা, যততত্র যানবাহন পার্কিং করা, জেব্রা ক্রসিং ব্যবহার না করে যেখান-সেখান দিয়ে রাস্তা পারাপারের দৃশ্যও এ নগরীতে নিয়মিত। পুলিশের ট্রাফিক শাখা চেষ্টা করেও যানজট কমাতে পারেনি। সবার মধ্যে ট্রাফিক সচেতনতা বাড়াতে করণীয় নিয়ে সম্প্রতি বৈঠকে বসেন এসএমপির ট্রাফিক শাখার কর্মকর্তারা। সে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, ট্রাফিক সচেতনতা বাড়াতে নবীনদের প্রতি জোর দিতে হবে। তাদের মাধ্যমেই একটি ট্রাফিক সচেতন প্রজন্ম গড়ে তোলা সম্ভব।

সিদ্ধান্ত অনুসারে গেল বছরের শেষ দিকে ‘টেন’ কার্যক্রম শুরু করে এসএমপির ট্রাফিক শাখা। এ কার্যক্রমের সার্বিক তত্ত্বাবধান করছেন এসএমপির উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) ফয়সল মাহমুদ। সমন্বয়ক হিসেবে রয়েছেন সহকারী কমিশনার (ট্রাফিক) আবুল খয়ের। আর তার সহকারী হিসেবে রয়েছেন সার্জেন্ট ফাহাদ চৌধুরী।

এসএমপি সূত্রে জানা গেছে, সড়ক দুর্ঘটনা থেকে নিজেকে ও অন্যকে বাঁচাতে ‘টেন’ কার্যক্রমের সাথে যুক্ত কর্মকর্তারা মহানগরীর বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের নিয়ে কমিটি গঠন করছেন। ইতিমধ্যে সরকারি পাইলট স্কুল, পাঠানটুলা দ্বিপাক্ষিক উচ্চবিদ্যালয়, সৈয়দ হাতিম আলী স্কুল, উপশহর বাংলাদেশ ব্যাংক স্কুল ও সোবহানীঘাট মাদ্রাসায় কমিটি গঠন করা হয়েছে। এসব স্কুলে কমিটির সদস্যরা প্রতি রবিবার স্কুলে এসেম্বলির সময় শিক্ষার্থীদের ট্রাফিক সচেতনতার ১০টি নিয়ম সম্পর্কে জানাচ্ছেন। এছাড়া স্কুল ছুটির পর পার্শ্বস্থ নিরাপদ এলাকায় আধা ঘন্টা ওই নিয়মগুলো সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্যাম্পেইন করছেন তারা।

যে ১০টি নিয়ম সম্পর্কে শিক্ষার্থীরা কাজ করছে, সেগুলো হলো- রাস্তায় চলাচলের সময় ফুটপাত ব্যবহার, ফুটপাত না থাকলে রাস্তার ডান দিকে হাঁটা, রাস্তায় হাঁটার সময় মোবাইল ফোন বা হেডফোন ব্যবহার না করা, রাস্তা পারাপারের সময় ফুটওভার ব্রিজ ও জেব্রা ক্রসিং ব্যবহার, ফুটওভার ব্রিজ, জেব্রা ক্রসিং না থাকলে ডান ও বামদিক দেখে সাবধানতার সাথে রাস্তা পারাপার, রাস্তা পারাপারের সময় হঠাৎ দৌড় না দেওয়া, চলন্ত যানবাহনে ওঠা বা নামা না করা, যানবাহন থেকে নামার সময় বাম পা সামনে দিয়ে নামা, ট্রাফিক আইন মেনে যানবাহন চালানো এবং ট্রাফিক সাইন, ট্রাফিক আইন জানা ও মানা।

এসএমপির উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) ফয়সল মাহমুদ বলেন, ‘‘চলতি মাস থেকে পাঁচটি করে স্কুলে ‘টেন’ কার্যক্রমের কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এই কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে ট্রাফিক সচেতন প্রজন্ম বেড়ে ওঠবে, যারা সর্বসাধারণকে ট্রাফিক আইন মেনে চলতে উৎসাহিত করবে বলে আমাদের বিশ্বাস।’’

 

খবরসূত্র : সিলেটভিউ২৪

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap